আজ শুক্রবার, ১৪ মে, ২০২১

লিডিং ইউনিভার্সিটিতে পুনরায় যোগ দিলেন ড. বশির আহমেদ ভূঁইয়া

 প্রকাশিত: ২০২১-০২-০৩ ১১:১০:২১

ডেইলিসিলেটনিউজ.কম:

লিডিং ইউনিভার্সিটির ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগে প্রফেসর পদে এবং ফেকাল্টি অব বিজনেস এডিমিনিস্ট্রেশন এর ডিন হিসেবে যোগ দিয়েছেন ড. বশির আহমেদ ভূঁইয়া। গত সোমবার তিনি ইউনিভার্সিটিতে যোগদান করেন। এর আগে ড. ভূঁইয়া ব্রুনাই, দারুসসালাম, মিনিস্ট্র অব এডুকেশনের পাবলিক সার্ভিস কমিশনের অধিনস্ত পলিটেকনিক ব্রুনাই এ এডুকেশন অফিসার (স্পেশাল লেভেল) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। জানা যায়, ড. বশির আহমেদ ভূঁইয়া ২০০৯-২০১৩ পর্যন্ত লিডিং ইউনিভার্সিটির ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগে প্রফেসর এবং বিভাগীয় প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ২০১৬ সালে লিডিং ইউনিভার্সিটি থেকেই ব্রুনাই দারুসসালাম গমন করেন।
কর্মজীবনে তিনি লিডিং ইউনিভার্সিটিতে ২০০৫ সালে সহকারি অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করে পর্যায়ক্রমে ২০০৮ এ সহযোগী অধ্যাপক এবং ২০১৩ সালে অধ্যাপক পদে পদোন্নতি লাভ করেন। তিনি ১৯৯৫-১৯৯৯ পর্যন্ত সিলেটের মদন মোহন কলেজে প্রভাষক হিসেবে, ১৯৯৯ সালে ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া পেসিফিক এ প্রভাষক, ১৯৯৯-২০০৩ পর্যন্ত ইনস্টিটিউট অব ম্যানেজমেন্ট এন্ড ইনফরমেশন টেকনোলজিতে সহকারি অধ্যাপক এবং ২০০৩-২০০৫ পর্যন্ত উত্তরা ইউনিভার্সিটিতে সহকারি অধ্যাপক হিসেবে পাঠদান করেন। তিনি লিডিং ইউনিভার্সিটিতে প্রক্টর, এমবিএ/ইএমবিএ প্রোগ্রামের ডাইরেক্টরসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দ্বায়িত্বরত ছিলেন।
ড. বশির আহমেদ ভূঁইয়া শিক্ষাজীবনে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৯২ সালে বিবিএ, ১৯৯৪ সালে এমবিএ এবং ২০১১ সালে এন্ট্রাপ্রেনিওরশীপ ডেভেলপমেন্ট এ পিএইচডি ডিগ্রী লাভ করেন।
দীর্ঘ ২৭ বছরের শিক্ষকতা জীবনে দেশ ও দেশের বাইরের বিভিন্ন রেফার্ড জার্নালে প্রফেসর ড. বশির আহমেদ ভূঁইয়ার ২২টি গবেষণা এবং ৬টি কনফারেন্স গবেষণা প্রকাশিত হয়। এছাড়াও তাঁর ৪টি চলমান রিসার্স প্রজেক্ট রয়েছে। তিনি দেশ এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিভিন্ন কনফারেন্স ও সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন।
এদিকে, লিডিং ইউনিভার্সিটিতে যোগদানের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ডরুমে তাকে বরণ করে নেন লিডিং ইউনিভার্সিটির ট্রেজারার ও ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য বনমালী ভৌমিক। এসময় লিডিং ইউনিভার্সিটির আধুনিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. এম. রকিব উদ্দিন, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ড. মোস্তাক আহমাদ দীন, রেজিস্ট্রার মেজর (অব.) মো শাহ আলম পিএসসি এবং বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক ও কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
সিলেটের উচ্চ শিক্ষা অঙ্গণে বেসরকারি খাতের সর্বোচ্চ প্রতিষ্ঠান এবং দেশের প্রথম সারির একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে (লিডিং ইউনিভার্সিটি) পুনরায় কাজ করার প্রয়াসে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

আপনার মন্তব্য