আজ শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

চুনারুঘাট পৌরসভা নির্বাচন আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি

 প্রকাশিত: ২০২১-০১-২১ ১৭:৪৩:৪৬

নিজস্ব প্রতিবদেক:

চতুর্থ ধাপে চুনারুঘাট পৌরসভা নির্বাচন আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে এ পৌরসভার তিনজন মেয়র প্রার্থীসহ ৫৫ জন তাদের মনোনয়ন দাখিল করেছেন। আগামী ১৯ জানুয়ারি মনোনয়ন যাচাই-বাচাই হবে। ১৪ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে।

এ পৌরসভায় মেয়র পদে তিনজন প্রার্থী তাদের মনোনয়ন দাখিল করেছেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার প্রার্থীর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম রুবেল, বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী বর্তমান মেয়র নাজিম উদ্দিন শামছু এবং ইসলামী আন্দোলন মনোনীত হাতপাখার প্রার্থী আব্দুল বাছির।

চুনারুঘাট পৌরসভায় মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী তিন প্রার্থীর মধ্যে কারও থেকে কেউ এক ইঞ্চিও পিছিয়ে নেই। তিন প্রার্থীই নিজ নিজ দলের মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেয়ায় রয়েছে নিজস্ব ভোটব্যাংক। এছাড়া জনপ্রিয়তার দিক থেকেও পিছিয়ে নেই কেউই।

গত নির্বাচনেও আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন রুবেল এবং বিএনপি থেকে সামছু। তাদের মধ্যে লড়াইও হয়েছিল হাড্ডাহাড্ডি। মাত্র ১৪ ভোটের ব্যবধানে নৌকার প্রার্থীকে হারিয়ে জয় পেয়েছিলের ধানের শীষের প্রার্থী নাজিম উদ্দিন সামছু। এবারও গত নির্বাচনের মতোই কঠিন লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

চুনারুঘাট উপজেলা মূলত আওয়ামী লীগের ঘাঁটি। এখানে বিপুল সংখ্যক চা শ্রমিক ভোটার হওয়ায় প্রতিটি নির্বাচনেই নৌকার বাক্সে একচাটিয়া ভোট পড়ে। তবে শুধুমাত্র পৌরসভার হিসেবে ধরলে বিএনপির দাপটও রয়েছে বেশ। যে কারণে ২০১৫ সালের নির্বাচনে লড়াই করলেও শেষ পর্যন্ত বিএনপি প্রার্থীর কাছে হারতে হয়েছে আওয়ামী লীগ প্রার্থীকে।

ভোটাররা বলছে, আওয়ামী লীগের প্রার্থী রুবেলের বেশ ব্যক্তি ইমেজ রয়েছে। এছাড়া সাবেক ছাত্র নেতা হওয়ার কারণে প্রতিটি ওয়ার্ডেই রয়েছে তার কর্মী সমর্থক। যে কারণে শক্তিশালি ভিত্তি গড়তে কাজ করছেন দিনরাত। প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে দলিয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে।

অন্যদিকে, বিএনপি প্রার্থী নাজিম উদ্দিন সামছুও কোন অংশেই পিছিয়ে নেই। দীর্ঘদিন মেয়রের দায়িত্ব পালন করায় জনগণের সাথে একটি সম্পর্কের সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া মেয়র হিসেবে তার কর্মকান্ডে যতেষ্ট খুশি পৌরবাসী। যে কারণে গত বছরের চেয়ে এ বছর ভোট বেশি পাওয়ার সম্ভাবনাও দেখছেন অনেকে।

আপাতত দুই প্রার্থীকে নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে আলোচনা চলছেও নিরব প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন ইসলামী আন্দোলন মনোনীত প্রার্থী আব্দুল বাছির। তিনিও প্রতিটি গ্রাম ও ওয়ার্ডে কর্মী সমর্থকদের নিয়ে দিনরাত প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এ পৌরসভায় কাউন্সিলর ও নারী কাউন্সিলর পদে ৫২ জন প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এর মধ্যে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪১ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১১ জন।

আপনার মন্তব্য