আজ শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২০

পথ দেখাচ্ছে মহানগর যুবলীগ: নেতৃত্বের প্রশংসায় মুক্তি-মুশফিক

 প্রকাশিত: ২০২০-১০-০১ ১৩:১৮:৪৪

সিলেটের যুবসমাজের কাছে সবচেয়ে  প্রিয় দুটি নাম হচ্ছে মুক্তি- মুশফিক, আলম খান মুক্তি হলেন সিলেট মহানগর যুবলীগের সভাপতি আর মুশফিক জায়গীরদার সাধারণ সম্পাদক। তাদেরকে দিয়ে গঠিত করা হয়েছিলো আহবায়ক কমিটি, আহবায়ক কমিটি গঠনের পর পরই তাদের নেতৃত্বে শুরু হয় সিলেটে যুবলীগকে সুসংগঠিত ও শক্তিশালী করার কাজ, সিলেটের প্রত্যেকটি ওয়ার্ড এ শুরু করেন কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া। পরিক্ষিত মুজিব সৈনিকদের দিয়ে প্রতিটি ওয়ার্ড এ সম্মেলনের মাধ্যমে সুন্দর কমিটি গঠন করেন। সিলেটে যুবলীগে ফিরতে শুরু করে হারানো ঐতিহ্য। এর পর
কাউন্সিলরদের সরাসরি  ভোটের মাধ্যমে বিপুল ভোটে সিলেট মহানগর যুবলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন আলম খান মুক্তি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন মুশফিক জায়গীরদার।


সভাপতি নির্বাচিত হয়ে চোখে রাশি রাশি স্বপ্ন নিয়ে কাজ শুরু করেন মুক্তি আর  এই স্বপ্ন পাল্টে দেবার। রাজনীতিকে স্বচ্ছতা এবং জনবান্ধব করে গড়ে তোলার স্বপ্ন। সাথে রয়েছে অমিত তেজ। সেই তেজ এবং দৃঢ় মনোবলকেই একমাত্র
পূঁজি করে পথ চলার তাদের। করোনাকালের রাজনীতি যখন অনেকটাই দায়সাড়া ভাবের, সে সময়টাতেও বারবার জ্বলে উঠছেন তাঁরা। তাঁরা সিলেট মহানগর যুবলীগ। স্বপ্নবাজ দুই তারুণ্যের হাত ধরেই পথ চলছে সিলেট মহানগর যুবলীগ। স্বপ্নবাজ, উদ্দাম এই তরুণদ্বয় হলেন মহানগর সভাপতি আলম খান মুক্তি এবং সাধারণ সম্পাদক মুশফিক জায়গীরদার। এই তরুণদ্বয়ের কাছে এখন হারতে বসেছে সিলেটের অপরাপর রাজনৈতিক সংগঠনগুলো। কর্মসূচীর পর কর্মসূচী দিয়ে এখন প্রশংসায় ভাসছে সিলেট মহানগর যুবলীগ। বিশেষ করে জাতীয় শোক দিবসকে কেন্দ্র করে মাসব্যাপী নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ডে শিরনী বিতরণ করে এই সংগঠন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে মিলাদ দোয়া ও শিরনী বিতরণ এবং দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ও বাকপ্রতিবন্ধদের মাঝে খাবার বিতরণ, শেখ হাসিনার জীবনাদর্শের উপর প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শনী করা হয়। এর আগে সিলেটে আর কোনো সংগঠনের পক্ষ থেকে এ রকম কর্মসূচীর ঘোষণা আসেনি কোনোদিন।

নের্তৃত্ব নির্বাচনের পর থেকে যুব সমাজের আলোকবির্তকা হিসেবে কাজ করছে এই সংগঠন। নিয়মিত সাংগঠনিক কার্যক্রমের পাশাপাশি চলতি বছরের ২০২০ সালে করোনাকালেও পথ দেখিয়েছে এই সংগঠন। লকডাউন পরিস্থিতিতে গৃহবন্দী নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্যে খাবার ও বিনামূল্যে সবজী বিতরণ করার পাশাপাশি করোনা প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধিতেও কাজ করেছে এই সংগঠন। করোনাকালে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণের পাশাপাশি স্যানিটাইজার, মাস্ক ও সাবান বিতরণের কর্মসূচীও পালন করে সিলেট মহানগর যুবলীগ। সাংগঠনিক কর্মসূচীর পাশাপাশি এবারের আরো একটি উল্লেখযোগ্য কর্মসূচী ছিল আগষ্ট মাসকে কেন্দ্র করে। ৭, ১৫ এবং ২১ আগষ্টকে ঘিরে এই সংগঠনের ছিল নানা
আয়োজন। সেই মুজিব বর্ষ থেকে করোনাকালের শোকাবহ আগষ্ট। তবুও ভাটা পড়েনি কর্মযজ্ঞে। ফলে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগও এখন ভুয়সী প্রশংসায় এই সংগঠনের। বিগত ২৮ আগষ্ট, ২০২০ শুক্রবার দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরীও উচ্ছসিত প্রশংসা করলেন মহানগর যুবলীগের। সংগঠনের মাসব্যাপী কর্মসূচীর অংশ হিসেবে ৪, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ড যুবলীগের উদ্যোগে নগরীর আম্বরখানা হাউজিং এস্টেট সংলগ্ন জামে মসজিদে বাদ জুম্মা
দোয়া, মিলাদ মাহফিল ও শিরনী বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন। সভায় তিনি বলেন, মহানগর যুবলীগ পুরো আগস্ট মাস ব্যাপী ২৭টি ওয়ার্ডে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদত বার্ষিকী
ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে বিভিন্ন  কর্মসুচী পালন করেছেন যা সিলেটে এর পুর্বে কেউ করেনি।
 প্রতিবেদকের  সাথে আলাপকালে সিলেট মহানগর যুবলীগের সভাপতি আলম খান মুক্তি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে বাস্তবায়ন করতে সিলেট মহানগর যুবলীগের প্রত্যেক নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে
কাজ করছে। তিনি বলেন আমি নির্দ্বিধায়  করে বলতে পারি সিলেট মহানগর যুবলীগে কোন চাদাবাজ, সন্ত্রাসী, ভুমিখেকো, মাদকাসক্ত ও গডফাদারের স্থান নেই। তিনি আরো বলেন আপনারা নিশ্চয়ই দেখেছেন করোনা মহামারীর শুরু থেকে আমি এবং আমার সাধারণ সম্পাদক নিজের জিবন বাজিরেখে ও পরিবারের কথা চিন্তা না
করে অসহায়, দিনমজুর, মধ্যবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্ত ও প্রতিবন্ধী মানুষের কাছে খাবার, সবজি ও  চিকিৎসা সামগ্রী পৌছে দিয়েছি।  রাতের আধারে মানুষের বাড়িতে খাদ্যসামগ্রী  দিয়েছি। পবিত্র রমজান মাসে পুরো মাসব্যাপী নিম্নবিত্ত ও হতদরিদ্র ও রোজাদারদের মাঝে  ইফতার বিতরণ ও খাবার বিতরণ করেছি , পবিত্র ঈদের সময় প্রতিবন্ধী ও বিভিন্ন স্থরের মানুষের মধ্যে   ঈদ উপহার বিতরণ করেছি। আলম খান মুক্তি বলেন রাজনীতি হচ্ছে জনগণের কল্যাণের জন্য, আমি জনগণের কল্যাণে কাজ করে যেতে চাই, এটাকে আমি ইবাদত হিসেবে মনে করি।  তিনি আরো বলেন  সিলেটে যুবলীগকে সুসংগঠিত ও  শক্তিশালী করে রাষ্ট্র নায়ক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করাই
আমাদের লক্ষ্য।  তিনি বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের নির্দেশনা মোতাবেক আমরা সিলেট মহানগর যুবলীগ জনগণের কল্যাণের কাজ করে কাজ করে যাচ্ছি।


এদিকে, কর্মসূচীর বিষয়ে কথা বলতে চাইলে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মুশফিক জায়গীরদার বলেন, যুবলীগ দেশের আদর্শ যুব সমাজের ভ্যানগার্ড। বঙ্গবন্ধু এবং দেশকে হৃদয়ে ধারণ করেই পথ চলতে হবে যুবসমাজকে। কিন্তু সেই পথ তৈরী করে দিতে হবে আদর্শিক যুব সমাজকে। তিনি বলেন, যুবলীগ সেই যুবসমাজ সৃষ্টির কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, রাজনীতির কল্যাণের বার্তা সমাজের সর্বত্র ছড়িয়ে না দিতে পাড়লে ইতিবাচক পরিবর্তন সম্ভব নয়। আর চিন্তা চেতনায় হৃদ্ধ একদল প্রশিক্ষিত দেশবান্ধব যুব সমাজ গড়ে তোলার লক্ষেই মহানগর যুবলীগের সকল কর্মসূচী। তিনি বলেন, যুবলীগ কখনোই থেমে থাকবেনা। রাজপথে, মাঠে-ময়দানে, দেশের যুব সমাজের কল্যাণে কাজ করে যাবে সব সময়।

আপনার মন্তব্য