আজ মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০২০

সিলেটে লকডাউন নিয়ে যে বিভ্রান্তি

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-১৮ ১১:১০:৪২

সিলেটে লকডাউন নিয়ে বিভ্রান্তি চলছে। বলা হয়েছিলো- বৃহস্পতিবার থেকে সিলেটের উত্তর অংশের পুরোটাই লকডাউনে যাচ্ছে। এতে কিছুটা আপত্তি সিলেটের মেয়রের। বৃহস্পতিবারের পরিবর্তে তিনি শনিবার থেকে লকডাউন চাইলেন। কিন্তু গতকাল জেলা প্রশাসক জানালেন- এখনো উচ্চ পর্যায় থেকে সিদ্ধান্ত আসেনি। ফলে করোনার রেড জোনে থাকা সিলেটে লকডাউন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এ কারণে সিলেটের স্বাস্থ্য বিভাগ আপাতত লকডাউনের প্রস্তুতি থেকে সরে এসেছে। করোনায় লাল সিলেট।

মহামারি করোনা কেড়ে নিলো সিলেটের প্রিয় নেতা বদরউদ্দিন আহমদ কামরানকে। করোনার একের পর এক ছোবলে তছনছ হয়ে যাচ্ছে সিলেট। প্রতিদিন এখন শত শত রোগী বাড়ছে। বিভাগে করোনা সংক্রমণের হার তিন হাজারের কাছাকাছি। খোদ সিলেট জেলাতেই করোনায় আক্রান্ত প্রায় ১৬’শ জন। মারা গেছেন ৫৫ জন। সিলেটজুড়ে করোনা নিয়ে নানা অস্থিরতা। সব কিছু স্বাভাবিক থাকলেও করোনার কারণে তীব্র আতঙ্ক জনমনে। হাসপাতালে রোগী ভর্তির জায়গা নেই। ইতিমধ্যে সিলেটের স্বাস্থ্য বিভাগ রেড, ইয়েলো ও গ্রিন জোন হিসেবে সিলেটকে ভাগ করেছে।

এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবনা সোমবারই পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে। এই অবস্থায় সিলেটে করোনার লাগাম টেনে ধরতে মঙ্গলবারই বৈঠকে বসলেন সিলেটের প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। তারা সিলেটের রেড জোনে লকডাউন করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বিষয়টি অবগত করেছেন ঊর্ধ্বতনদের। সিদ্ধান্ত আসতে হবে ঢাকা থেকে। ফলে সিদ্ধান্ত না আসার কারণে এখনো সিলেটের রেড জোনকে লকডাউনে নেয়া যাচ্ছে না। তবে বৃহস্পতিবার থেকে লকডাউন হতে পারে এমন একটি আভাস ছিল প্রশাসন থেকে। বিষয়টি নিয়ে মঙ্গলবার রাতে সিলেট সিটি করপোরেশনে বৈঠকে বসেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। এ বৈঠকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা ছাড়া নগর ভবনের কাউন্সিলর ও কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সবার সঙ্গে আলোচনা করে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বৃহস্পতিবারের পরিবর্তে শনিবার সকাল থেকে সিলেটকে লকডাউন করার অনুরোধ জানান। বৈঠকেও এ নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়। সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, নগর ভবনে মঙ্গলবার রাতের সিদ্ধান্ত প্রস্তাব আকারে স্বাস্থ্য বিভাগ ও সিলেটের প্রশাসনকে অবগত করা হয়েছে।

তিনি জানান, শনিবার লকডাউন করার প্রস্তাব করা হয়েছে এজন্যই যে, শুক্রবার পর্যন্ত সিলেটের উত্তর অংশের মানুষদের প্রস্তুতি নেয়ার সুযোগ দেয়া। এই সময়ের মধ্যে যাতে ব্যাপক প্রচারণা চালিয়ে জনগণকে জানান দেয়া যায় লকডাউনের। শুক্রবার মসজিদে মসজিদেও বিষয়টি জানিয়ে দেয়া যাবে। এদিকে সিলেটে লকডাউন থেকে সরে আসে মাল্টি সেক্টরাল কমিটি। সহসাই সিলেটকে লকডাউন করা হচ্ছে না বলে জানিয়ে দেয়া হয়। বুধবার সকালে এ নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সিলেটের ডিসি কাজী এমদাদুল ইসলাম, সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মণ্ডল সহ প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা বৈঠক করেন। এই বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় সিলেটে আপাতত লকডাউন হচ্ছে না। দুপুরের দিকে সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মণ্ডল জানিয়েছেন, আপাতত সিলেট জেলার রেড জোন এলাকাগুলোতে লকডাউন করা হচ্ছে না। জেলার মাল্টি সেক্টরাল কমিটির নেতারা পরবর্তী বৈঠকে বসে সিদ্ধান্ত নিয়ে লকডাউনে যাবেন। ওই বৈঠক কবে হবে- সে ব্যাপারে সঠিক কোনো তথ্য জানাতে পারেননি তিনি। জেলা প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠকের পর সিলেটের সিভিল সার্জনও আপাতত লকডাউনের প্রস্তুতি থেকে সরে এসেছেন। বিষয়টি নিয়ে পরে চিন্তা করবেন বলে তার অধীনস্থদের জানিয়ে দিয়েছেন। এদিকে সিলেটের জেলা প্রশাসক কাজী এমদাদুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, সিলেটে এখনো লকডাউনের কোনো সিদ্ধান্ত আসেনি। সংক্রমণের দিক বিবেচনায় সিলেটকে বিভিন্ন জোনে ভাগ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছিলো। সেটি করা হয়েছে এবং পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার বা শনিবার লকডাউন করা হচ্ছে- এ ধরনের খবরের কোনো ভিত্তি নেই বলে জানান তিনি।

আপনার মন্তব্য