আজ মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারী, ২০২০

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ঢাকায় আসছেন ম্যারাডোনা

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-০১ ১১:৫৫:৪২

কারো কাছে তিনি ঈশ্বর, কেউ তাঁকে সশরীরে খেলতে দেখেও ভেবেছেন স্বপ্ন দেখছেন, ফুটবল দুনিয়ায় তিনি এক উন্মাদনার নাম—ডিয়েগো

আরমান্ডো ম্যারাডোনা। এ বছর তাঁর পা পড়ছে বাংলাদেশে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী রাঙাতে আসছেন আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি।

জন্মশতবার্ষিকীর আয়োজনে প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেই এমন কিছুর চেষ্টা চলছে, যা অভূতপূর্ব, যা বহুদিন মনে রাখবে মানুষ। ক্রীড়াঙ্গনে এই তত্পরতাটা জোরালোই। বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ, বঙ্গবন্ধু সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ, বিশ্ব টোয়েন্টি, হকি জুনিয়র এশিয়া কাপ—কোনো কিছুতেই যেন পূর্ণতা আসছিল না। অবশেষে কাল কাজী সালাউদ্দিন ঘোষণা দিলেন ম্যারাডোনার ঢাকায় আসার, ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে আমরা ম্যারাডোনাকে বাংলাদেশে আনছি। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানাতেই তিনি আসছেন, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবেন, শুভেচ্ছা জানাবেন। এ মুহূর্তে এটাই আমাদের কাছে সবচেয়ে বড় খবর। আর এটা চূড়ান্ত। আমরা ভীষণভাবে অপেক্ষায় আছি এই সফরটার জন্য।’ এর আগে পেলের ঢাকায় আসাসহ আরো বেশ কিছু বড় খবর শোনা গিয়েছিল বিভিন্ন সূত্রে, লিওনেল মেসিসহ আর্জেন্টিনা জাতীয় দলেরও আবার ঢাকায় খেলার খবর বেরিয়েছিল। চেষ্টা চলছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মতো বড় ক্লাবকেও এখানে খেলানোর। কিন্তু এসব কোনো খবরেই বাফুফে সভাপতি সালাউদ্দিন তখন মুখ খোলেননি। কাল বাফুফে ভবনে তিনিই ম্যারাডোনার আসার খবরটি দিয়েছেন নিশ্চয়তাসহ। কলকাতায় এসেছেন ম্যারাডোনা, কিন্তু এই প্রথম ঢাকায় আসবেন ১৯৮৬-এর নায়ক। যদিও ম্যারাডোনার এই সফরের নির্দিষ্ট দিনক্ষণ এবং প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার বাইরে ঢাকায় তাঁর অন্যান্য কার্যক্রমের বিষয়ে এখনো কিছু নিশ্চিত করতে পারেনি বাফুফে। যতদূর জানা গেছে, জন্মশতবার্ষিকীর আয়োজনের বছরেই ম্যারাডোনা তাঁর ঢাকায় আসার সুবিধাজনক সময়টি নিশ্চিত করবেন।

নায়কোচিত পারফরম্যান্সে ১৯৮৬-এর বিশ্বকাপ জয়, নাপোলিকে ইতালির শ্রেষ্ঠত্ব এনে দেওয়া, ড্রাগের অভিশাপে এরপর বিপর্যস্ত ক্যারিয়ার, নব্বইয়ের বিশ্বকাপে সেই কান্না—সব মিলিয়ে যেমন আলোচিত খেলোয়াড়ি জীবন তাঁর, খেলা শেষেও তেমনি কোচিং এবং পেলের সঙ্গে ইতিহাসের সেরার তর্কে তেমনি মুখর সময় পার করছেন ৫৯ বছর বয়সী ম্যারাডোনা। এই কিংবদন্তিকে একবার দেখার আশা এই সুদূর ব-দ্বীপেও কত অজস্র মানুষের। অবশেষে সেই স্বপ্নই সত্যি হতে যাচ্ছে।

আপনার মন্তব্য