আজ রবিবার, ০১ নভেম্বর, ২০২০

করোনায় নিহত চিকিৎসকদের নিয়ে ডা. নাসরীন'র আবেগঘন স্ট্যাটাস

 প্রকাশিত: ২০২০-০৭-২৯ ১৪:১০:৪২

পেশাগত দায়িত্ব যথাযতভাবে পালন করতে গিয়ে করোনা ভাইরাস (কভিড-১৯) এ আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন দেশের অনেক খ্যাতনামা চিকিৎসক, এখনও আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন অনেকেই। করোনায় মৃত্যুবরণকারী সেই সব সম্মুখ যোদ্ধাদের রুহের মাগফেরাত কামনা করেছেন সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের গাইনী এন্ড অবস্ এর বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ডা. নাসরীন আক্তার।

 সম্প্রতি তিনি তাঁর ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন-

"ভেবেছিলাম আর লিখবো না মৃত্যু সংবাদ, লিখে কষ্ট বাড়ে কেবলই,  বেশীরভাগ জনগনকে দেখলে মনে হয় করোনা নামক কিছু এদেশে ছিলো না, এখনও নেই। আমাদের দেশের চিকিৎসকদের মৃত্যু হার বিশ্বের সব দেশকে ছাড়িয়ে গেছে অনেক আগেই।

গতকাল (২৮/০৭/২০২০) সকাল সাড়ে দশটায় শিক্ষকের শিক্ষক স্বনামধন্য সার্জন, সজ্জন ব্যক্তিত্ব, পরোপকারী, শিক্ষানুরাগী,আমৃত্যু বিসিপিএসএর একনিষ্ঠ হিতৈষী প্রফেসর টিআইএম আবদুল্লাহ আল ফারুক (ফেলো নং ৩৯৬) স্যার কোভিডের কাছে হার মেনে পরপারে চলে গেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।  অনেকদিন ভুগেছেন তিনি কোভিড কমপ্লিকেশনে, স্যারের সহধর্মিণী প্রফেসর কোহিনূর বেগম গাইনির নিবেদিত প্রাণ শিক্ষক।আল্লাহ স্যারকে জান্নাতে স্থান করে দিন আর মেডামকে এ অসহনীয় শোক সইবার ক্ষমতা দিন। ওনারা দুইজনই বরিশাল মেডিকেলের প্রাক্তন স্টুডেন্ট। দু'জনই অনেক দাতব্য সংস্থার সাথে জড়িত।

 এর আগে ডাঃ এস.এম. নুরুদ্দিন আবুল আল বাকী, সহকারী অধ্যাপক, সার্জারী বিভাগ, কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ, কুষ্টিয়া (ফেলো আইডি: ২৭৯৩, বিষয়ঃ সার্জারী) কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ১৭/০৭ /২০২০ ভোর রাতে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি...রাজিউন)। মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

অধ্যাপক আবুল হোসাইন খান চৌধুরী, অবঃ অধ্যাপক (কার্ডিওলজি), প্রাক্তন পরিচালক, এনআইসিভিডি (ফেলো-২৯৭, বিষয়-মেডিসিন) ১৮/০৭/২০২০ তারিখ সকাল ১০:৩০ মিনিটে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি...রাজিউন)। মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

গত শনিবারে বেলা প্রায় তিনটায় বিদায় নিলেন সিলেট মেডিকেল কলেজের ২০ তম ব্যাচের প্রাক্তন ছাত্র, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল ডাঃ মোঃ শহীদুল্লাহ্। ঢাকার সিএমএইচএ কোভিডের কাছে হার মানতে হলো তাঁর। অত্যন্ত সজ্জন এ চিকিৎসক সিএমএসডির সদ্য সাবেক পরিচালক ছিলেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। 

গতকাল ভোরেই (২৮/০৭/২০২০) আরেকটি হৃদয় বিদারক ঘটনা ঘটলো, সিলেট মেডিকেল এর ৪১ তম ব্যাচের ছাত্র ডাঃ রাজীব ভট্টাচার্য স্যানিটাইজার থেকে সৃষ্ট আগুনে পুড়ে  দুইদিন ঢাকা মেডিক্যাল এর বার্ণ ইউনিটের আইসিইউতে ভর্তি থাকার পর চলে গেলেন দূর আকাশের তারা হয়ে। অত্যন্ত মেধাবী এ চিকিৎসক আর একটি পরীক্ষার পরই হয়ে যেতেন স্বপ্নের নিউরোসার্জন। স্বপ্ন স্বপ্নই রয়ে গেলো, তার চিকিৎসক স্ত্রীর শরীরও পুড়ছে আগুনে, উনি আপাততঃ শংকা মুক্ত।  ছোট একটি কন্যা শিশু রেখে গেছেন রাজীব,

 আইসিইউতে ঢোকার মুখে কাছের বন্ধুকে বলে গেছেন, "আমার মেয়ের খেয়াল নিস,আর #ও_যেনো #চিকিৎসক_না_হয়। যেখানেই থাকো সুখে থেকো রাজীব।''

আপনার মন্তব্য