আজ রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর, ২০১৯

মাল্টিমিডিয়া জার্নালিজম-বদলে যাচ্ছে সাংবাদিকতা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৮-২৮ ০০:২৪:৫৫

মাল্টিমিডিয়া সাংবাদিকতা সমসাময়িক সাংবাদিকতার  যা ইন্টারনেটের মাধ্যমে দুই বা ততোধিক মিডিয়া ব্যবহার করে সংবাদ বিষয়বস্তু বিতরণ করে, বা একাধিক মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে সংবাদ প্রতিবেদন প্রচার করে।

মার্ক ডিউজের মতে ”মাল্টিমিডিয়া সাংবাদিকতা  পাঠ্য, চিত্র, অডিও, ভিডিও এবং অন্যান্য ফর্ম্যাট সহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের উপাদান দ্বারা বর্ধিত নিউজ কাহিনীকে বোঝায়”

অনলাইন গণমাধ্যমে কর্মরত দেশি-বিদেশি সাংবাদিক ও সাংবাদিকতার শিক্ষকরা বলছেন, ‘পাঠক-দর্শকের চাহিদার কারণেই সাংবাদিকতার ধরন বদলে যাচ্ছে। মানুষ এখন একই সঙ্গে পড়তে, দেখতে ও শুনতে চায়। ফলে গণমাধ্যমের বিকল্প কিছু ভাবার সুযোগ নেই। মাল্টিমিডিয়ার এই ব্যবহার আমাদের জন্য ভালো। তবে দক্ষতার সঙ্গে না করতে পারলে তা বুমেরাং হয়ে যাবে।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস  বলেন, ‘সামনের সময় মাল্টিমিডিয়া জার্নালিজমের। মোবাইল ব্যবহার করেই সংবাদের সব কাজ হবে। বর্তমানের সাংবাদিকতা গতানুগতিক ধারার মধ্যে প্রশিক্ষিত হয়ে আসে। কিন্তু স্যোশাল মিডিয়ার কারণে প্রত্যেকে সাংবাদিক হয়ে যাচ্ছে এবং সিটিজেন জার্নালিজমের কারণে তারা নিজেদের সাংবাদিক দাবিও করছে। তবে মূলধারা সেটাকে চ্যালেঞ্জ করছে এই জায়গা থেকে যে স্যোশাল মিডিয়ার সংবাদ সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ হচ্ছে না।’

তিনি আরও বলেন, “সাংবাদিকতা নতুন নতুন প্রযুক্তির সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে। নতুন প্রযুক্তির আত্মস্থ করানোর দায়িত্ব মিডিয়া হাউসগুলো যেমন নেবে তেমনি এই ধারণাগুলোর জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তাদের সিলেবাসে এগুলো অন্তর্ভুক্ত করবে। কেননা পুরনোরা নতুন যেকোনও কিছু গ্রহণে ‘কালচারালি শকড’ হয়। ফলে নতুনদের মধ্য দিয়ে এটি বেশি গ্রহণযোগ্য করে তুলতে হবে।”

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালিজম অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগে মাল্টিমিডিয়া বিষয়ে অতিথি শিক্ষক হিসেবে কাজ করেন চ্যানেল আই এর অনলাইন এডিটর জাহিদ নেওয়াজ খান। নিউ মিডিয়া জার্নালিজমে বাংলাদেশের কর্মীরা কতটা প্রস্তুত জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘প্রস্তুতিটা ঘোষণা না দিয়ে তো ছিলই। যখন দেখা গেল কোনও টিভির একটা ভিডিও কনটেন্ট মানুষ এই পরিমাণ দেখেছে যেটা ওই টিভির আনুমানিক হিসাবের দর্শকের চেয়ে অনেক বেশি। তখন থেকেই নিশ্চয়ই আমাদের জানা বা বোঝা যে টিভি সেটের জন্য আমরা কনটেন্ট দিচ্ছি তার চেয়েও অনেক বেশি দর্শক মোবাইল ডিভাইসে। সেটা যে সবাই বুঝতে পেরেছে বা পারছে এমন নয়। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, নিউজ কনটেন্টের ক্ষেত্রে মোবাইল এখন নাম্বার ওয়ান ডিভাইস।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিনোদনের ক্ষেত্রেও ইউটিউব মূল টিভির সঙ্গে পাল্লা দিচ্ছে। সবচেয়ে জনপ্রিয় অনুষ্ঠানটি টিভিতে যত মানুষ দেখছে, পরে ইউটিউবে দেখছে তার চেয়ে বেশি মানুষ। নিউজের ক্ষেত্রে লাইভ কাভারেজে টিভি হয়তো আরও অনেক দিন ডমিনেট করবে, কিন্তু এর বাইরে অবশ্যই মাল্টিমিডিয়া কনটেন্ট। সেটা হোক কোনও সাইটের নিজস্ব ব্যবস্থায় কিংবা ইউটিউব বা ফেসবুকের ক্ষেত্রে। তবে রেভিনিউ বিষয়টা এখনও সেই অবস্থায় আসেনি, আবার কিছুটা হলেও এসেছে। এটা কয়েক বছরের মধ্যে একটা পরিণতি পাবে। সেজন্য মিডিয়ায় যেমন হিউম্যান রিসোর্স ডেভেলপ করতে হবে, তেমনি আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকেও।’


মাল্টিমিডিয়া সাংবাদিকরা কী করবেন?
মাল্টিমিডিয়া সাংবাদিকরা তথ্য সংগ্রহ করে, গল্প লেখে, সম্প্রচার করে এবং সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে বিশ্বের বর্তমান ঘটনা ও ঘটনাবলী সম্পর্কে জনগণকে অবহিত করবেন।


মাল্টিমিডিয়া সাংবাদিক কোন কাজগুলো সম্পাদন করেন?

১ তথ্য সংগ্রহ ২ অনুসন্ধান ৩ ঘটনা পর্যবেক্ষণ    ৪ সাক্ষাত্কার গ্রহণ ৫ গল্প আকর্ষণীয়করণ
৬ যে তথ্য ব্যবহার করবেন তা সঠিক কিনা তা নিশ্চিত করণ ৭ একাধিক মিডিয়া: সংবাদপত্র, টেলিভিশন, রেডিও এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে জনগণের কাছে গল্পগুলি উপস্থাপন ৮ সৃজনশীলভাবে চিন্তা করুন ৯ পরিকল্পনার মাধ্যমে ক্রিয়াকলাপগুলি সংগঠিত এবং অগ্রাধিকার দিন ১০ তথ্য বিশ্লেষণ করুন এবং এর যথার্থতা পরীক্ষা করুন।

মাল্টিমিডিয়া সাংবাদিকের কী দক্ষতা থাকতে হবে?
১ কম্পিউটার দক্ষতা ২ সমস্যা সমাধানের দক্ষতা ৩ সৃজনশীলতা ৪  পর্যবেক্ষণের দক্ষতা ৫ প্রযুক্তিগত জ্ঞান ৬ লেখার দক্ষতা ৭ ফটোগ্রাফিক জ্ঞান ৮ সম্পাদনার জ্ঞান আরও অনেক  বিষয়  ধারণা রাখতে হবে। 

তথ্য সংগ্রহ: বিবিসি বাংলা, ঢাকা ট্রিবিউন, উইকিপিডিয়া, বিঅনএয়ার।

আপনার মন্তব্য